বিশ্ব ঐতিহ্য: বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য, আফগানিস্তান

 অবস্থান | Location

আফগানিস্তানের বামিয়ান প্রদেশে বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ অবস্থিত। এ বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যটি আফগানিস্তানের মধ্য অঞ্চলের দুর্গম হিন্দু কুশ পর্বত এলাকায় এবং সমুদ্র সমতল থেকে প্রায় ২,৫০০ মিটার উঁচুতে দীর্ঘ এবং খাড়া পাথুরে পর্বতবেষ্টিত একটি বড় অববাহিকায় অবস্থিত।

 জিও কো-অর্ডিনেট | GeoCoordinate

বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষের জিও কো-অর্ডিনেট (অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ) হল 34°54’26.4″N 67°11’22.0″E (34.907329, 67.189447)

স্থাপত‌্যিক বিবরণ | Architectural Description

বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য এবং প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ হল বামিয়ান উপত্যকায় এবং এর আশেপাশের ৮টি পৃথক পুরাকীর্তির সমন্বিত একটি প্রত্নস্থান। বামিয়ান খাড়া পর্বত (Bamiyan Cliff) গাত্রে ছিল কুলুঙ্গিতে (niche) ক্ষোদিত বিশালাকার ২টি বুদ্ধ মূর্তি। এ মূর্তি ২টির উচ্চতা ছিল যথাক্রমে ৫৫ মিটার এবং ৩৮ মিটার, যা ২০০১ সালে তালেবানরা ধ্বংস করেছিল। উপত্যকার পাদদেশে রয়েছে ৩য় থেকে ৫ম শতাব্দীর বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর আশ্রম (বিহার), চ্যাপেল (খ্রীষ্টীয় ভোজনালয়) এবং উপাশনালয়। এখানকার বেশ কয়েকটি গুহা এবং কুলুঙ্গিতে অঙ্কিত চিত্র (paintings) এবং উপবিষ্ট বুদ্ধ (seated Buddha) রয়েছে।

বামিয়ান খাড়া পর্বত থেকে প্রায় ৩ কি.মি. দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত কাকরাক (Kakrak) উপত্যকায় ৬ষ্ঠ থেকে ১৩ শতাব্দীর ১০ মিটার উঁচু বুদ্ধ মূর্তিসহ শতাধিক গুহা এবং সাসানীয় আমলের (Sasanian period) অঙ্কিত চিত্রসহ উপাশনালয় রয়েছে। বামিয়ান খাড়া পর্বত প্রায় ২ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ফুলাদি উপত্যকায় পাশাপাশি কৌল-ই আকরাম (Qoul-i Akram) এবং লালাই গামি (Lalai Ghami) – এর একাধিক গুহা রয়েছে। বামিয়ান খাড়া পর্বতের দক্ষিণে উপত্যকা অববাহিকার কেন্দ্রে রয়েছে  ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শতাব্দীর শাহরি-ই-গুলঘুলাহ (Shahr-i Ghulghulah) দুর্গের ধ্বংসাবশেষ। এ ধ্বংসাবশেষই হল প্রাচীন সিল্ক রুটের (Silk Route) উপরে থামার জায়গা (stopping place) হিসেবে বামিয়ান প্রাচীন জনবসতির চিহ্ন, যা চীন এবং ভারতকে প্রাচীন বখতরিয়ার (Bakhtria) মাধ্যমে সংযুক্ত করেছিল। বামিয়ান উপত্যকা বরাবর পূর্ব দিকে কল্লাই কাফারিতে (Qallai Kaphari) রয়েছে ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শতাব্দীতে নির্মিত দুর্গ প্রাচীর এবং বসতির ধ্বংসাবশেষ। এখান থেকে আর পূর্ব দিকে (বামিয়ান খাড়া পর্বত থেকে প্রায় ১৫ কি.মি. পূর্বে) শাহর-ই জুহাকে (Shahr-i Zuhak) রয়েছে খ্রিস্টীয় ১০ম থেকে ১৩ শতাব্দীতে ইসলামিক গজনভীদ (Ghaznavid )এবং ঘোরিদ (ঘোর) রাজবংশের শাসনামলের কীর্তি এবং তদপূর্ব আমলের ধ্বংসাবশেষ।

ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট | Historical Background

বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য এবং প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষসমূহ শৈল্পিক এবং ধর্মীয় বিকাশের প্রতিনিধিত্ব করে, যা খ্রিস্টীয় প্রথম থেকে ত্রয়োদশ শতাব্দীর প্রাচীন বখতরিয়া (Bakhtria) চিহ্নিত এবং বৌদ্ধ শিল্পের গান্ধারীয় (Gandharan) বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রভাবকে একীভূত করেছিল। এ প্রত্নস্থানে রয়েছে ইসলামিক আমলের দুর্গ নির্মিত প্রাসাদসহ বহু বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর আশ্রম(বিহার) এবং উপাশনালয়।  এ প্রত্নস্থানটিতে দণ্ডায়মান ২টি বুদ্ধ মূর্তি ২০০১ সালের মার্চে তালেবানদের দ্বারা ব্যাপক ধ্বংসের শিকার হয়। ২০০৩ সালে ইউনেস্কো কর্তৃক এ প্রত্নস্থানটিকে বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ নামে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকাভূক্ত করা হয়।

অসামান্য সার্বজনীন মান | Outstanding Universal Value

বিশ্ব ঐতিহ্য নির্বাচনের মানদণ্ড (the criteria for selection) ১ম, ২য়, তয়, ৪র্থ ও ৬ষ্ঠ (i, ii, iii, iv & vi) এর ভিত্তিতে অসামান্য সার্বজনীন মান (outstanding universal value) পূরণ করায় ইউনেস্কো কর্তৃক এ প্রত্নস্থানটিকে বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ [Cultural Landscape and Archaeological Remains of the Bamiyan Valley] নামে বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকাভূক্ত করা হয়। নির্বাচনের মানদণ্ড-এর ভিত্তিতে এ প্রত্নস্থানটি যে সব  অসামান্য সার্বজনীন মান (outstanding universal value) পূরণ করে, সে সব নিম্নে তুলে ধরা হল –

মানদণ্ড (criteria) ১ম (i) : বামিয়ান উপত্যকায় বুদ্ধ মূর্তি এবং গুহা শিল্প মধ্য এশীয় অঞ্চলে বৌদ্ধ শিল্পে গান্ধারীয় (Gandharan) বিষয়ক এক অসামান্য (outstanding) উপস্থাপন।

মানদণ্ড (criteria) ২য় (ii) : বামিয়ান উপত্যকার সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য ও প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ হল সিল্ক রোডের উপরে অবস্থিত একটি গুরুত্বপূর্ণ বৌদ্ধ কেন্দ্র। এ শৈল্পিক এবং স্থাপত্যের ধ্বংসাবশেষগুলো গান্ধারীয় একটি বিশেষ শৈল্পিক প্রকাশের এবং বিকাশের ভিত্তি হিসেবে ভারতীয়, হেলেনীয়, রোমান এবং সাসানীয় প্রভাবের আন্তঃবিন্যাসের ব্যতিক্রমী সাক্ষ্য বহন করে। এর সাথে পরবর্তীকালে ইসলামিক প্রভাব যুক্ত করা হয়েছে।

মানদণ্ড (criteria) ৩য় (iii) : বামিয়ান উপত্যকাটি মধ্য এশীয় অঞ্চলে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের একটি ব্যতিক্রমী সাক্ষ্য বহন করে, যা কালের বিবর্তনে অদৃশ্য হয়ে গেছে।

মানদণ্ড (criteria) ৪র্থ (iv) : বামিয়ান উপত্যকা হল একটি সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্যের এক অসামান্য (outstanding) উদাহরণ; যা বৌদ্ধ ধর্মের একটি উল্লেখযোগ্য সময়কে চিত্রিত করে।

মানদণ্ড (criteria) ৬ষ্ঠ (vi) : বামিয়ান উপত্যকা পশ্চিমা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে স্মরণীয় অভিব্যক্তি। এটি বহু শতাব্দী ধরে তীর্থযাত্রার একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। তাদের প্রতীকী মূল্যবোধের কারণে, এ স্মৃতিচিহ্ন ২০০১ সালে ইচ্ছাকৃত ধ্বংসসহ বিভিন্ন সময়ে অস্তিত্বের সংকটে পড়েছিল, যা পুরো বিশ্বকে নাড়া দিয়েছে।

লেখক: মো. শাহীন আলম  

Reference: Cultural Landscape and Archaeological Remains of the Bamiyan Valley
image source: World Heritage Center


Add a Comment

Your email address will not be published.